ভারতে আটকে পড়াদের দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু করেছে সরকার :পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

                                                                                                                                      ভারতে আটকেপড়া প্রায় আড়াই হাজার বাংলাদেশিকে দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু করেছে সরকার। বেসরকারী বিমান সংস্থা ইউএস-বাংলার স্পেশাল ফ্লাইটে তাদের ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। প্রথম ফ্লাইটে বিকালেই ঢাকা পৌঁছাচ্ছেন দেড় শতাধিক বাংলাদেশি। তাদের প্রায় সবাই রোগী বা রোগীর অ্যাটেন্ডেন্টস (সহায়ক স্বজন)। ভারতের চেন্নাইতে চিকিতসার জন্য গিয়ে করোনা পরিস্থিতিতে নিয়মিত যোগোযাগ বন্ধে বিপাকে পড়েছিলেন তারা। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি এক ভিডিও বার্তায় জানিয়েছেন- প্রাথমিক পরিকল্পনা মতে, চেন্নাই থেকে ৬ এবং কলকাতা থেকে ২ -মোট ৮টি ফ্লাইটে পরিচালিত হবে। যাদের রোগীদের ফেরার বিষয়টি অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে। ভারতজুড়ে লকডাউন।                                                                           এরমধ্যেও হাসপাতাল এলাকা থেকে যাত্রীদের নির্বিঘ্নে বিমানবন্দরে পৌঁছার বিষয়টি নিশ্চিতে দেশটির কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য সরকারের সঙ্গে দূতাবাসের যোগোযাগ অব্যাহত রয়েছে। প্রতিমন্ত্রী তার ভিডিও বার্তায় রোগীছাড়া অন্যকাজে ভারতে গিয়েআটকে পড়া বিশেষত বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়াদের প্রতি ধৈয্য ধারণের আহ্বান জানিয়ে তাদেরকে ‘সন্তানতুল্য’ আখ্যা দিয়ে বলেন, একটু ধৈয্যে ধারণ করুন। জানি অনেকের ফুড হিবিটের কারণে সরবরাহ করা খাওয়া-দাওয়ায় কষ্ট হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষের আমাদের নিয়মিত যোগাযোগ আছে। আমরা খাবার পাঠাতে চেয়েছিলাম, কিন্তু কতৃপক্ষ তাতে রাজী না হয়ে নিজরা ফুড সাপ্লাইর আশ্বাস দিয়েছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, পরিস্থিতি বিবেচনায় পর্যায়ক্রমে আপনাদেও আমরা ফেরানোর ব্যবস্থা করবো।
উল্লেখ্য ইউএস বাংলা জানিয়েছে- ১৬৪ সিটের বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ দিয়ে ভারতের বেশিরভাগ ফ্লাইটগুলো পরিচালিত হবে। ঢাকা থেকে খালি ফ্লাইট যাবে, ফুল হয়ে ফেরার কথা।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

শিক্ষাঙ্গন

খেলাধুলা

লাইফস্টাইল

ঘোষনাঃ