আজ কিংবদন্তি কবি ওমর খৈয়ামের জন্মদিন

                                                “রুটি মদ ফুরিয়ে যাবে, প্রিয়ার কালো চোখ ঘোলাটে হয়ে আসবে, কিন্তু বইখানা অনন্ত- যৌবনা- যদি তেমন বই হয়।”
সৈয়দ মুজতবা আলী এমনই অনুবাদ করেছিলেন তাঁর কবিতার।
ফার্সি সাহিত্য তো বটেই বিশ্ব সাহিত্যেও এক অনন্য বিস্ময়কর প্রতিভা ছিলেন তিনি।
কিংবদন্তি কবি ওমর খৈয়াম।
তাঁর পুরো নাম অবশ্য বেশ বড়।
“গিয়াসউদিন আবুল‌ ফাতেহ ওমর ইবনে ইব্রাহিম আল-খৈয়াম নিশাপুরি”।
একাধারে ছিলেন বিখ্যাত কবি, গণিতবেত্তা, দার্শনিক ও জ্যোতির্বিদ। এক অনন্য প্রতিভা।
ওমর খৈয়ামের কবিতা সমগ্রকে বলা হয় “রূবাইয়াৎ”। যার প্রতিটি কবিতা অবিশ্বাস্য প্রতিভার সংমিশ্রণ।
ওমর খৈয়ামের শৈশবের কিছু সময় কেটেছে অধুনা আফগানিস্তানের বালক্ শহরে। সেখানে তিনি বিখ্যাত দার্শনিক মহাম্মদ মনসুরীর কাছে শিক্ষা গ্রহণ করেন।
পরে তিনি খোরাসানের অন্যতম সেরা শিক্ষক হিসেবে বিবেচিত ইমাম মোয়াফ্ফেক নিশাপুরির শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন। জীবনের পুরো সময় জুড়ে ওমর তার সব কাজ নিষ্ঠার সঙ্গে করেছেন।
দিনের বেলায় জ্যামিতি ও বীজগণিত পড়ানো, সন্ধ্যায় মালিক-শাহ-এর দরবারে পরামর্শ প্রদান এবং রাতে জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চ্চার পাশাপাশি জালালি বর্ষপঞ্জি সংশোধন! সবটাতে তাঁর নিষ্ঠার কোন কমতি ছিল না।
ইসফাহান শহরে ওমরের দিনগুলি খুবই কার্যকর ছিল। কিন্তু আততায়ীর হাতে সুলতান মালিক শাহ-এর মৃত্যুর পর তার বিধবা পত্নী ওমরের ওপর রুষ্ঠ হলে ওমর হজ্ব করার জন্য মক্কা ও মদীনায় চলে যান।পরে তাকে নিশাপুরে ফেরার অনুমতি দেওয়া হয়। নিশাপুরে ওমর গণিত, জ্যোতির্বিজ্ঞান ও চিকিৎসা বিষয়ক তার বিখ্যাত কাজগুলো সম্পন্ন করেন।
ইরান ও পারস্যের বাইরে ওমরের একটি বড় পরিচয় কবি হিসাবে। এর কারণ তার কবিতা বা রুবাই এর অনুবাদ এবং তার প্রচারের কারণে। ইংরেজী ভাষী দেশগুলোতে এর সবচেয়ে বেশি প্রভাব দেখা যায়।
ইংরেজ দার্শনিক সাহিত্যিক টমাস হাইড প্রথম অ-পারস্য ব্যক্তিত্ব যিনি প্রথম ওমর কাজ সম্পর্কে গবেষণা করেন। তবে, বহির্বিশ্বে খৈয়ামকে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় করেন এডওয়ার্ড ফিটজেরাল্ড। তিনি খৈয়ামের ছোট ছোট কবিতা বা রুবাই অনুবাদ করে তা রুবাইয়্যাতে ওমর খৈয়াম নামে প্রকাশ করেছিলেন।
বাংলা সাহিত্যে ওমর খৈয়ামের রুবাইয়াৎ অনুবাদ করেন কাজী নজরুল ইসলাম সহ অনেকে। ১৯৫৯ সালের ডিসেম্বরে কাজী নজরুল ইসলামের অনুবাদকৃত “রুবাইয়াৎ-ই-ওমর খৈয়াম” গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয়।
সৈয়দ মুজতবা আলী এর ভূমিকা লেখেন। ওমর খৈয়াম নজরুলকে প্রচন্ড আকর্ষিত করেছিলেন।।এ অনুবাদে অত্যন্ত চমৎকার ভাষাভঙ্গি ব্যবহৃত হয়েছে।
অন্যান্য অনুবাদকারের চেয়ে নজরুলের অনুবাদ অনুভূতির পরশে, যথাযত শব্দের পারিপাট্যে উজ্জ্বল।

ফার্সি কাব্য-জগতে ওমর খৈয়াম এক বিশেষ চিন্তাধারা ও বিশ্বদৃষ্টির পথিকৃৎ। তিনি এমন সব চিন্তাবিদ ও নীরব কবিদের মনের কথা বলেছেন যারা সেসব বিষয়ে কথা বলতে চেয়েও প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে তা চেপে গেছেন।
কেউ কেউ তো ওমর খৈয়ামের কবিতার নামে বা তার কবিতার অনুবাদের নামে নিজেদের কথাই প্রচার করেছেন।
আজ কিংবদন্তি কবি ওমর খৈয়ামের জন্মদিন। বিনম্র শ্রদ্ধা জানাই তাঁর প্রতি।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

শিক্ষাঙ্গন

খেলাধুলা

লাইফস্টাইল

  • item-thumbnail

    ৩০০ রোগের সমাধান ১টি গাছেই

    Views 0Likes 0Rating 12345 সজনে গাছ সবার কাছেই খুব পরিচিত। সজনে ডাঁটা, পাতা ও ফুল সবই খাওয়ার উপযোগী। তাছাড়া সজনের আছে নানা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। সজনের ...

ঘোষনাঃ